Sunday, 16 July 2017

এফেসাসের মেয়েরা

কটু আগেই বৃষ্টি হয়ে গেছে । এই পাথুরে ধ্বংস স্তূপে পায়ে পায়ে যত ধুলো জড়ো হয়েছিল সব ধুয়ে গেছে । ধুয়ে মুছে যায় নি কেবল একটি পায়ের ছাপ । মসৃণ , সামান্য নিষ্প্রভ মর্মর পাথরে একটি বড় বাঁ পায়ের ছাপ । একটি মেয়ের মুখ একটি মুদ্রা রাখার গর্ত আর উল্টো দিকের পথনির্দেশ । এফেসাসে জড়ো হয়ে থাকা ভাঙা চোরা পাথরের মধ্যে পৃথিবীর আদিমতম জীবিকার জন্য সম্ভবত প্রাচীনতম বিজ্ঞাপন ।  বড় পায়ের ছাপ মানে প্রাপ্ত বয়স্ক হলেই এসো , ওই যে গর্ত তার মধ্যে যত পারো মুদ্রা ঢালো , তাহলে পাবে তোমার কাঙ্ক্ষিত মেয়েটিকে । যদি এসব না থাকে উল্টোপথে হাঁটো , সোজা চলে যাও সেলসাস লাইব্রেরিতে । যদি বয়স কম হয় যদি পয়সা না থাকে সেলসাস লাইব্রেরির জ্ঞান ভাণ্ডার তোমার  উপযুক্ত জায়গা । অন্তত নিজের মেধাকে শানিত করতে পারবে । 
এটি  ছিল একটি বন্দর শহর । তাই  ভিনদেশি বনিক নাবিকদের  অবাধ আনাগোনা ।




 মারিয়াম আনা বা মা মেরির বাড়ি দেখে এফেসাসে ঢুকেছি । একটা গোটা শহরের ধ্বংস স্তূপ । ইজিয়ন সমুদ্রের ধারে একটা প্রাচীন বন্দর শহর । খুব বড় নয় কিন্তু স্বয়ং সম্পূর্ণ । সব কিছু ছিল  এখনকার   এই ছোট প্রত্ন শহরে।    পেল্লাই সব মন্দির ,বড় বড় অ্যাম্পি থিয়েটার , গোসল খানা , ফোয়ারা , পাবলিক টয়লেট ,লাইব্রেরি , চওড়া রাস্তা , মিউনিসিপ্যালিটি ,দেড় হাজার বছরের পুরোনো  মোজেইকের  ফুটপাথ, বাতি স্তম্ভ যেখানে এককালে অলিভ তেলের বাতি জ্বলত,  মাইল ফলক , জিমনাসিয়াম ,  মাটির নিচের পাইপ , ভগ্ন খিলানে অপরূপ নক্সা , রাস্তার দু পাশে খুপরি খুপরি ঘর মানে সারি সারি  দোকান , মৃতদেহ রাখার কফিন ধর্ম অর্থ কাম মোক্ষ  সব  চিহ্ন ধরে রেখেছে সেই  “ ... শব থেকে উৎসারিত স্বর্ণের বিস্ময়” ।
অ্যাম্পি থিয়েটারের ঠিক মাঝখানে দাঁড়িয়ে খালি গলায় গান গাইছেন জাপান বা কোরিয়ার কোন এক পর্যটক । গমগম করে কানে বাজছে তার ভিনদেশি গান । বিস্ময়কর !  










Temple


Gate


Public Latrin

Celsus Library (1st Century AD)/ Underground pipes


 Mosaic Footpath 1st century AD





coffins


milestones 

বিশাল মন্দির স্তম্ভ  । দেবী কই ? কোথাও তাকে দেখতে পেলাম না ।  শূন্য মন্দিরে দেবী নেই ! এফেসাসের নির্যাস কিন্তু মেয়েদের হাতে ।
এশিয়া মাইনরের আনাতোলিয়ায় যুদ্ধ করত আমাজনরা । এফেসাসের প্রতিষ্ঠার মূলেও রয়েছে এই নারী যোদ্ধা দের দুর্দমনীয় বীরত্ব । মাজোস বা স্তন (ডান দিকের)  কেটে ফেলত তারা যাতে ভালোভাবে তির ধনুক চালানো যায় । স্তন হীন তাই আ মাজন । কন্যা সন্তানের জন্ম হলে তাকে নিয়ে যুদ্ধে যেত । ছেলের জন্ম দিলে বাপের কাছে ফেলে রাখত ।  খ্রিস্টের জন্মের আগে থেকে গড়ে ওঠা এই ভরভরন্ত নগরীর টুটাফুটা মোহে আমি এতোটাই ভেবলিয়ে গেছিলাম  যে আমাজনদের প্রত্ন স্মারক  খুঁজে পেলুম না । একবারটি চোখে দেখার বড় ইচ্ছে ছিল ।
কিন্তু সেই আশ্চর্য দেবী কই ? আরটেমিস ? আনাতোলিয়ার আদিম কাল্টের মাতৃ দেবী কাইবেলে   মিশে গেলেন গ্রিক আরটেমিসের সঙ্গে । পুরোনো এবং নতুন আগ্রাসী সভ্যতার মেলবন্ধন ! এমন নজির আমাদের দেশেও আছে প্রচুর ।
 আরটেমিসের সাদৃশ্য পাওয়ায়া যাবে রোমান ডায়নার মধ্যে । উর্বরতা ও প্রাণিজগতের দেবী । প্রবল দাপুটে  ছিলেন আরটেমিস ।অন্তত এশিয়া মাইনরের গ্রিকদের কাছে । দৈহিক পবিত্রতা নিয়ে ভয়ানক ছুঁৎ মার্গ ছিল তাঁর । তাঁর সারা দেহ জুড়ে ডিম্বাকৃতি নকশাগুলো কি ?  মনে হতে পারে বক্ষদেশ , অনেকে বলেন ডিম্বাণু অথবা অণ্ডকোষ । জানি না কি ! তবে পাগান সভ্যতার রহস্যময়তা ধরা পড়ে । মানুষের জন্মই তখন বিরাট রহস্যের খনি । কিন্তু দেবী কোথায় ?

এই পাথরের মধ্যেই বসে আছেন জয়ের দেবী নাইকে ।  বেশ প্রসন্নভাবেই বসে আছেন এখনো । এখনকার নামকরা স্পোর্টস ব্র্যান্ড । সেই কোনকালে নাইকা নাইকা বলে চিৎকার করে বনিকের দল বিদ্রোহ করেছিল সম্রাট কনটান্টাইনের বিরুদ্ধে ।





এফেসাস এক অসাধারণ গ্রিক রোমান শহর ছিল , ভগ্নাবশেষ তার প্রমাণ । খ্রিস্ট ধর্মের উত্থানের সঙ্গে সঙ্গে মূর্তি পুজোয় প্রবল বাধা আসে । এই শহরের   অনেক সুন্দর কারুকাজ নাকি নতুন রোমানদের নতুন রাজধানী  কন্সটান্টাইন (ইস্তানবুল)  সাজাতে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল । বহিরাগত শাসক , নতুন ধর্মের উত্থান , সমুদ্রের সরে যাওয়া , বন্দরের ব্যাবসায় ভাঁটা সব মিলিয়ে  এফেসাস ক্রমশ ঝিমিয়ে পড়তে থাকে ।
এক গেট দিয়ে ঢুকে পথ ঘুরে ঘুরে আরেক গেট দিয়ে বের হওয়া । এই ভাবেই পুরো শহর টা  দেখা হয়ে যাবে ।
জায়গায় জায়গায় রেস্টোরেশনের কাজ চলছে । ছোট ছোট অন্ধকার কুঠরিতে গ্রিলের গেটে তালা । ছেনি বাটালির মতো যন্ত্রপাতি ডাঁই করে রাখা আছে , সবই সেকালে ব্যাবহার হত । ওমা , দেখি গ্রিলের ফাঁক দিয়ে  তাকিয়ে আছে সেই দেবী , সারা গায়ে মুন্ডমালার মতো ডিম্বাকৃতি সাজ !  বলছে , আমাকে বের করো , সবাই দেখুক আমাকে । জানুক আমার মহিমা ! সেকালে দুনিয়া কাঁপাতাম আমি ! আমার মন্দির ছিল সেকালের সেরা ।





সেই অদ্ভুত আলো আঁধারের পেটের মধ্যে সেঁধিয়ে আছে তালা বন্ধ আরটেমিস । কেউ ভিড় করছে না । কেউ দেখছে না । কোনও গাইড ,ট্যুরিস্ট দের দেখাতে নিয়ে আসছে না । কোনো রকমে হাত ঢুকিয়ে ছবি তুললাম।  অবহেলায় অগোচরে পড়ে রয়েছেন সেই প্রবল শক্তিময়ী নারী ,  এক অসাধারণ ঐতিহাসিক শিল্প স্মারক ।  ঠিক যেভাবে কোন অবহেলায় চাপা পড়ে যাচ্ছে তামাম দুনিয়ার মেয়েরা , ঠিক যেভাবে মেয়েদের  সমস্যা তুলে কথা বলতে গিয়ে  অপ্রিয় অবাঞ্ছিত উদ্দেশ্য প্রণোদিত বলে তকমা এঁটে দেওয়া হয় এক অধ্যাপক কে, আমার চোখের সামনে ।


আমি প্রেতিনীর মতো খুলে দিচ্ছি অপ্রিয় সকাল
তোমরা তো ভালো পারো প্রিয়মিথ্যা বলে পাশ ফেরা...



কবিতা যশোধরা রায়চৌধুরী
ছবি লেখক